সকল শ্রেণীর পাঞ্জেরী গাইড pdf download
Trending

৫ম শ্রেণীর সকল গাইড pdf download | Class 5 guide pdf download

আজকে আপনাদের জন্য রয়েছে ৫ম শ্রেণীর সকল গাইড pdf download | Class 5 guide pdf download

৫ম শ্রেণীর সকল ধরণের বইয়ের গাইড পাবেন এখানে।

Class 5 guide book pdf english version | Lecture Guide for Class 5 PDF Download BD | Class 5 guide bangla | Class 5 English Guide book PDF | Class 5 English guide PDF Bangladesh | Class 5 Math Solution Guide PDF download

পঞ্চম শ্রেণীর লেকচার গাইড pdf download | অনুপম গাইড pdf | পঞ্চম শ্রেণীর সকল গাইড pdf | পঞ্চম শ্রেণীর অনুপম গাইড | ৫ম শ্রেণীর গণিত গাইড pdf download | জুপিটার গাইড ৫ম শ্রেণীর pdf | ৫ম শ্রেণীর ইংরেজি গাইড pdf | ৫ম শ্রেণীর বাংলা গাইড pdf download

৫ম শ্রেণীর সকল গাইড pdf download | Class 5 guide pdf download

Class 5 Math Solution guide PDF download – পঞ্চম | ৫ম শ্রেনীর গণিত গাইড pdf download

Class 5 Science Book Solution Pdf Download- ৫ম/পঞ্চম শ্রেনীর বিজ্ঞান গাইড PDF download

Class 5 Bangla Guide Pdf Download -৫ম/পঞ্চম শ্রেণীর বাংলা গাইড pdf  Click  Here To  Download 

Class 5 English Guide Pdf Download -৫ম/পঞ্চম শ্রেণীর ইংরেজি গাইড pdf

৫ম/পঞ্চম শ্রেনীর বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় গাইড PDF – Class 5 Bangladesh And Global Guide Pdf Download

৫ম/পঞ্চম শ্রেণীর ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা গাইড PDF -Class 5 Islam and moral education Guide Pdf Download

  ৫ম/পঞ্চম শ্রেনীর হিন্দুধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা গাইড Pdf download 

৫ম/পঞ্চম শ্রেনীর বৌদ্ধধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা গাইড Pdf Download

  ৫ম/পঞ্চম শ্রেনীর খ্রিস্টধর্ম  ও নৈতিক শিক্ষা গাইড Pdf Download 

আরো পড়ুনঃ- ৬ষ্ঠ শ্রেণীর সকল গাইড pdf download

৭ম শ্রেণীর সকল গাইড pdf download

পঞ্চম শ্রেণীর লেকচার গাইড pdf download  | অনুপম গাইড pdf | পঞ্চম শ্রেণীর সকল গাইড pdf | পঞ্চম শ্রেণীর অনুপম গাইড | ৫ম শ্রেণীর গণিত গাইড pdf download | জুপিটার গাইড ৫ম শ্রেণীর pdf | ৫ম শ্রেণীর ইংরেজি গাইড pdf | ৫ম শ্রেণীর বাংলা গাইড pdf download

Class 5 guide book pdf english version | Lecture Guide for Class 5 PDF Download BD | Class 5 guide bangla | Class 5 English Guide book PDF | lecture guide book pdf | panjeree guide book pdf

এখামক বাংলা সাইত্য ২সেকে দুই হাতে বুকে চাপিয়া ধরিল। বন্তুত সেদিন তাহাকে এ পরামর্শ কম লােকে দেয় না, | এখং খন সে কিছুতেই রাজি হইল না, তখন উৎপাত-উপ্রবও তাহার প্রতি সামান্য হয় নাই, সেই থা সণ করিয়া অভাগীর চোখ দিয়া জল পড়িতে লাগিল। ছেলে হাত দিয়া মুছাইয়া দিয়া বলিল, তাটী পেতে দেব মা, শুবি? কায়া রহিল। কাঙালী মাদুর পাতিল, কাথা পাতিল, মাচার উপর হইতে ছােট বালিশটি পাড়িয়া। হাত ধরিয়া তাহাকে বিছানায় টানিয়া লইয়া যাইতে, মা কহিল, কাঙ্তালী, আজ তাের আর কাজে গিয়ে।

কজ নেই। ह হলে দেবে না মা। ঈক গে, আয় তােকে রূপকথা বলি। | জ, কোটালপুতুর আর সেই পক্ষীরাজ ঘােড়া – হাা নয়- নিজের সৃষ্টি। জ্বর তাহার যত বাড়িতে লাগিল, উষ্ণ রক্তস্রোত যত দ্রুতবেগে স বহিতে লাগিল, ততই সে যেন নব নব উপকথার ইন্দ্রজাল রচনা করিয়া চলিতে লাগিল। বিরাম নাই, বিচ্ছেদ নাই- কাঙালীর স্বল্প দেহ বার বার রােমাঞ্চিত হইতে লাগিল। ভয়ে, ভাগী রাজপুত্র, কোটালপুত্র আর পক্ষীরাজ ঘােড়ার কথা দিয়া গল্প আরম্ভ করিল। এ-সকল তাহার। মে কাছে কতদিনের শােনা এবং কতদিনের বলা উপকথা। কিন্তু মুহূর্ত-কয়েক পরে কোথায় গেল। হহার রাজপুত্র, আর কোথায় গেল তাহার কোটালপুত্র-সে এমন উপকথা শুরু করিল যাহা পরের কাছে।

READ  Panjeree guide for class 6 pdf download | পাঞ্জেরী গাইড class 6 pdf

কজ কামাই করিবার প্রন্তাব কাঙালীর খুব ভালাে লাগিল, কিন্তু কহিল, জলপানির পয়সা দুটো ত এ এুধ কারতে হইল না, কাঙালী তৎক্ষণাৎ মায়ের বুক ঘেঁষিয়া শুইয়া পড়িয়া কহিল, বল তা হলে। সয, পুলকে সে সজোরে মায়ের গলা জড়াইয়া তাহার বুকের মধ্যে যেন মিশিয়া যাইতে চাহিল । रহিরে বেলা শেষ হইল, সূর্য অস্ত গেল, সন্ধ্যার ম্লান ছায়া গাঢ়তর হইয়া চরাচর ব্যাপ্ত করিল, य ারের মধ্যে আজ আর দীপ জ্বলিল না, গৃহস্থের শেষ কর্তব্য সমাধা করিতে কেহ উঠিল না, নবিত অন্ধকারে কেবল রুগণ মাতার অবাধ গুঞ্জন নিস্তব্ধ পুত্রের কর্ণে সুধাবর্ষণ করিয়া চলিতে লাগিল।

সেই শুশান ও শুশানযাত্রার কাহিনী। সেই রথ, সেই রাঙ্গা পা-টি, সেই তাঁর স্বর্গে যাওয়া। द्म করিয়া শােকার্ত স্বামী শেষ পদধুলি দিয়া কাঁদিয়া বিদায় দিলেন, কি করিয়া হরিধ্বনি দিয়া র মাতাকে বহন করিয়া লইয়া গেল, তার পরে সন্তানের হাতের আগুন। সে আগুন ত আগুন १ভালা, সে ত হরি! তার আকাশজোড়া ধুঁয়াে ত ধুঁয়াে নয় বাবা, সেই ত সগ্যের রথ। বলীচরণ, বাবা আমার! জল অক্ষুটে শুধু কহিল, যাঃ-বলতে নেই। | হাতের আগুন যদি পাই বাবা, বামুন-মার মত আমিও সগ্যে যেতে পাবাে।

অভাগীর সব্ মা সে কথা বােধ করি গুনিতেই পাইল না, তপ্তনিঃশ্বাস ফেলিয়া বলিতে লাগল , ছােটজাত বলে তখন কিন্তু কেউ ঘেন্না করতে পারবে না-দুঃখী বলে কেউ ঠেকিয় রাখতে পারবে না। ইস। ছেলের হাতের আগুন, রথকে যে আসতেই হবে। ছেলে মুখের উপর মুখ রাখিয়া ভগ্নকণ্ঠে কহিল, বলিস নে মা, বলিস নে, আমার বডড ভয় করে কা মা কহিল, আর দেখ কাঙালী, তাের বাবাকে একবার ধরে আনবি, অমনি যেন পায়ের মাথায় দিয়ে আমাকে বিদায় দেয়। অমনি পায়ে আলতা, মাথায় সিদুর দিয়ে,কিন্তু কে বা দে তুই দিবি, না রে কাও্তালী?

READ  ৫ম-১০ম সকল শ্রেণীর গাইড বই ডাউনলোড pdf | Class 5-10 all guide books pdf download

তুই আমার ছেলে, তুই আমার মেয়ে, তুই আমার সব! বলিতে বলিতে ছেলেকে একেবারে বুকে চাপিয়া ধরিল। অভাগীর জীবন-নাট্যের শেষ অঞ্চ পরিসমাপ্ত হইতে চলিল। বিস্তৃতি বেশি নয়, সামান্যই। বােধ কি ত্রিশ্টা বৎসর আজও পার হইয়াছে কি হয় নাই, শেষও হইল তেমনি সামান্যভাবে। গ্রামে কবিক ছিল না, ভিন্ন গ্রামে তাঁহার বাস। কাঙালী গিয়া কাঁদাকাটি করিল, হাতে-পায়ে পড়িল, শেষ়ে দ বাঁধা দিয়া তাহাকে এক টাকা প্রণামী দিল। তিনি আসিলেন না, গােটা-চারেক বড়ি দিলেন। তাহার কত কি আয়ােজন।

খল, মধু আদার সত্ত্ব, তুলসীপাতার রস-কাঙালীর মা ছেলের প্রতি রাগ করির বলিল, কেন তুই আমাকে না বলে ঘটি বাঁধা দিতে গেলি বাবা ! হাত পাতিয়া বড়ি কয়টি গ্রহণ করিয়া পা মাথায় ঠেকাইয়া উনানে ফেলিয়া দিয়া কহিল,ভালাে হই ত এতেই হবাে, বাগদি-দুলের ঘরে কেউ কখনাে ওষুধ খেয়ে বাঁচে না। বলি দিন দুই-তিন এমনি গেল । প্রতিবেশীরা খবর পাইয়া দেখিতে আসিল, যে যাহা মুষ্টিযােগ জানিত, হরিণের শিশ-ঘযা জল, গেঁটে-কড়ি পুড়াইয়া মধুতে মাড়িয়া চাটাইয়া দেওয়া ইত্যাদি অব্যর্থ ঔষধের সন্ধান দিয়া যে যাহার কাজে গেল। ছেলেমানুষ কাঙালী ব্যতিব্যস্ত হইয়া উঠিতে, মা তাহাকে কাছে টানিয়া লইয়া কহিল, কোবরেজের বড়িতে কিছু হলাে না বাবা আর ওদের ওষুধে কাজ হবে? আমি এমনি ভালাে হবাে।

কাঙালী কাদিয়া কহিল, তুই বড়ি ত খেলি নে মা, উনুননে ফেলে দিলি। এমনি কি কেউ সারে? আমি এমনি সেরে যাবাে। তার চেয়ে তুই দুটো ভাতে-ভাত ফুটিয়ে নিয়ে খা দিকি, আমি চেয়ে দেখি। রি কাঙালী এই প্রথম অপটু হস্তে ভাত রাধিতে প্রবৃত্ত হইল। না পারিল ফ্যান ঝাড়িতে, না পারিল ভালাে কে করিয়া ভাত বাড়িতে। উনান তাহার জ্বলে না-ভিতরে জল পড়িয়া ধুঁয়া হয়; ভাত ঢালিতে চারিদিকে ছড়াইয়া পড়ে; মায়ের চোখ ছলছল করিয়া আসিল।

নিজে একবার উঠিবার চেষ্টা করিল, কিন্তু মাথ সােজা করিতে পারিল না, শয্যায় লুটাইয়া পড়িল। খাওয়া হইয়া গেলে ছেলেকে কাছে লইয়া কি করিয়া কি করিতে হয় বিধিমতে উপদেশ দিতে গিয়া তাহার ক্ষীণকণ্ঠ থামিয়া গেল, চোখ দিয়া কেব অবিরলধারায় জল পড়িতে লাগিল। র গ্রামে ঈশ্বর নাপিত নাড়ী দেখিতে জানিত, পরদিন সকালে সে হাত দেখিয়া তাহারই সুমুখে মুখ গল্ভীর করিল, দীর্ঘশ্বাস ফেলিল এবং শেষে মাথা নাড়িয়া উঠিয়া গেল। কাঙালীর মা ইহার অর্থ বুঝিল, কিনত তাহার ভয়ই হইল না। সকলে চলিয়া গেলে সে ছেলেকে কহিল, এইবার একবার তাকে ডেকে আনতে পারিস বাবা?

READ  ৭ম শ্রেণীর সকল গাইড pdf download | Class 7 all guide pdf download

এবমিক বাংলা সাহিতয ককে মা? এই যে রে-ও-গায়ে যে উঠে গেছে- ভালী বুঝিয়া কহিল, বাবাকে? এগী চুপ করিয়া রহিল। এভাগীর নিজেরই যথেষ্ট সন্দেহ ছিল, তথাপি আন্তে আন্তে কহিল, গিয়ে বলবি, মা শুধু একটু তােমার সে তখান যাইতে উদ্যত হইলে সে তাহার হাতটা ধরিয়া ফেলিয়া বলিল, একটু কাদাকাটা করিস বাবা, একট থামিয়া কহিল, ফেরবার পথে অমনি নাপতে-বৌদির কাছ থেকে একটু আলতা চেয়ে আনিস। | লা তাহাকে অনেকেই বাসিত। জ্

বর হওয়া অবধি মায়ের মুখে সে এই কয়টা জিনিসের কথা এয়ের বুলাে চায়। কালী বালল, সে আসবে কেন মা? লিস মা যাচ্চে। | এবার এতরকম করিয়া শুনিয়াছে যে, সে সেইখান হইতে কাদিতে কাদিতে যাত্রা করিল। | দিন রসিক দুলে সময়মত যখন আসিয়া উপস্থিত হইল তখন অভাগীর আর বড় জঞান নাই। মবণের ছায়া পড়িয়াছে, চোখের দৃষ্টি এ সংসারের কাজ-সারিয়া কোথায় কোন্ অজানা কজলী, আমার নাম করলেই সে দেবে। আমাকে বড় ভালােবাসে। শে চলিয়া গেছে। লী কাঁদিয়া কহিল, মাগাে! বাবা এসেছে-পায়ের ধুলাে নেবে যে! সিক হতবুদ্ধির মত দাঁড়াইয়া রহিল।

পৃথিবীতে তাহারও পায়ের ধুলাের প্রয়ােজন আছে, ইহাও নাকি চাহিতে পারে তাহা তাহার কল্পনার অতীত। বিন্দির পিসি দাঁড়াইয়া ছিল, সে কহিল, ও বাবা, দাও একটু পায়ের ধুলাে। হতত বুঝিল, হয়ত বুঝিল না, ইয়ত বা তাহার গভীর সঞ্চিত বাসনা সংস্কারের মত তাহার আচ্ন নায় ঘা দিল। এই মৃত্যুপথ-যাত্রী তাহার অবশ বাহুখানি শয্যার বাহিরে বাড়াইয়া হাত পাতিল। ত অগ্রসর হইয়া আসিল। জীবনে যে স্ত্রীকে সে ভালােবাসা দেয় নাই, অশন-বসন দেয় নাই, বােজববর করে নাই, মরণকালে তাহাকে সে শুধু একটু পায়ের ধুলা দিতে গিয়া কাদিয়া ফেলিল। মা বালল, এমন সতীলক্ষ্মী বামুন-কায়েতের ঘরে না জন্মে, ও আমাদের দুলের ঘরে জন্মালে কেন! একথা যেন তীরের মত বিধিল।

| র ওর একটু গতি করে দাও বাবা-ক্যাঙালার হাতের আগুনের লােভে ও যেন গ্রাণটা দিলে। তগীর অভাগ্যের দেবতা অগােচরে বসিয়া কি ভাবিলেন জানি না, কিন্তু ছেলেমানুষ কাঙালীর বুকে।

Ultra Next Gen

Best website for Bangla pdf download, Travel guides And many more. It’s the best website for this things

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!